মহিলাদের জন্য ঘরে বসে করা যাবে এমন ৫টি ব্যবসা করার আইডিয়া

আজকে আমার এই আর্টিকেলে মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ৫টি ব্যবসার 

আইডিয়া সম্পর্কে আলোচনা করব যে ,

৫টি ব্যবসা মহিলারা ঘরে বসে করতে পারবে  

মহিলাদের জন্য ঘরে বসে ৫টি ব্যবসা করার আইডিয়া


তাহলেআজকের এই আর্টিকেলে জেনে নিন মহিলাদের জন্য ঘরে বসে তৈরি ব্যবসা করার আইডিয়া আর আপনি যদি মহিলা হয়ে থাকেন তাহলে এই  ব্যবসাগুলো কিন্তু আপনারা ঘরে বসে করতে পারবেন   

 

{tocify} $title={Table of Contents}

 

তাহলেআর কথা না বাড়িয়ে এই ব্যবসা গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই 

১ . Blogging

বর্তমান সময়েসবথেকেজনপ্রিয় ব্যবসার ভেতরেকিন্তুএটিএকটিব্যবসা  আরএইব্যবসাটি হলোব্লগিংআপনারাকিন্তুবিনাপুঁজিতে অর্থাৎকোনটাকাপয়সাইনভেস্ট নাকরেএইব্যবসাকরতেপারবেন অর্থাৎ  ,এই ব্যবসাটা কিন্তুআপনাদের মেধাএবংআপনাদের পরিশ্রমের উপরনির্ভরকরবে  

অবশ্য ক্ষেত্রে আপনারা একটা ওয়েবসাইট বানাতেগেলেআপনাদের প্রথমঅবস্থায় অল্পপরিমাণে কিছুটাকাইনভেস্ট করতেহবে।আপনাদের সবারপ্রথমেএকটিডোমেইনকিনতেহবেএবংএকটিহোস্টিং কিনতেহবেতারপরএকটাওয়েবসাইটের জন্যভালোমানেরথিমকিনতেহবে আর এই সমস্তজিনিসগুলোপড়েআপনাদের ওয়েবসাইটে  গুগলে পাবলিশকরতেহবে। 

আরআপনিযদিনিজেইনিজেরওয়েবসাইট ডিজাইনকরতেপারেনসবকিছুসাজাতেপারেনবুঝাতেপারেনতাহলেসেক্ষেত্রে আপনিসবকাজনিজেকরতেপারবেনকিন্তুআপনিযদিওয়েবসাইট বানাতেনাপারেনএবংকিভাবেডোমেইনহোস্টিং সেটআপকরতেহয়এইবিষয়সর্ম্পকে নাজানেনতাহলেকিন্তুআপনিচাইলে  একজনওয়েবডেভেলপার এরসাহায্য নিতেপারেনতারকাছথেকেআপনারাএকটুবানিয়ে নিতেপারেন  

একটাডোমেইনথেকে৮০০থেকে  ১০০০টাকারভেতরেআপনারাপেয়েযাবেন।আরহোস্টিং আপনারাযদিএকবছরেযদিনিতেচানতাহলেসেক্ষেত্রে আপনাদের বারোশোটাকাথেকে15 টাকারমতোলাগতেপারেআরএটাসম্পূর্ণ নির্ভরকরেআপনিকতটুকুজায়গানিবেনতারউপরে   

আপনিযদিপাঁচদিনবা2 জিবিনা1জিবিনেটঅথবাআপনিযদি10 জিবিনিতেচানতাহলেসেইহিসেবেআপনাদের কাছথেকে  হোস্টিং প্রোভাইডার টাকানিবেআপনিযতটুকুপরিমাণে  জায়গা ব্যবহার করবেনঅর্থাৎআপনিযদি1 জিবিব্যবহার করেনতাহলেসেক্ষেত্রে আপনারকাজদিয়ে1 জিবিটাকানেওয়াহবেআপনিযদি10 জিবিব্যবহার  করেন তাহলে10 জিবিটাকানেওয়াহবে  

আপনিযতটুকুপরিমাণে ব্যবহার করবেনততটুকুই আপনারকাছথেকেতারাটাকানেবে । আশাকরিব্যাপারটা বুঝতেপেরেছেন , আরএরপরেআপনাদের ওয়েবসাইটে জন্য  থিম  ক্রয়করারক্ষেত্রে কিন্তু1000 টাকাথেকে১৫০০  টাকারভিতরে  একটাভালোমানেরথিম  পেয়েযাবেন 

 Read More – লাভজনক স্টক মালের ব্যবসার আইডিয়া 

Read More – অন পেজ এসইও কি,অনপেজ এসইও কিভাবে করবেন?

অবশ্য ক্ষেত্রে সকল   থিমের  দাম এক নাআপনারাচাইলে৫০০টাকা৬০০টাকারভেতরেথিম  পাবেন, আপনারাচাইলেপ্রথমাবস্থায় অল্পদামেরথিমগুলোকিনেসেগুলোদিয়েকাজকরতেপারেনপরেযখনআপনাদের ওয়েবসাইটে প্রচুরপরিমাণে  এবং আপনাদের ওয়েবসাইট থেকেযখনইনকামশুরুহবে,তখনআপনারাচাইলেভালোমানেরএকটাসিমকিনতেপারেনকিন্তুপ্রথমঅবস্থায় অল্পটাকাদিয়েকিনলেআপনাদের জন্যকোনসমস্যাহবেনা  কিন্তু  থিমকেনারক্ষেত্রে অবশ্যইলক্ষ্যরাখবেনযাতেকরেআপনারাযেটিমটাকিনবেনসেটাযেনএসইওফ্রেন্ডলি হয়এবংইউজারফ্রেন্ডলি হয়ডিজাইনটা যাতেসহজথাকে। 

যাতেকরেএকজনভিজিটরআপনারওয়েবসাইটে আসলেবুঝতেপারে  অর্থাৎএকজনভিজিটরযদিআপনারওয়েবসাইটে আসেতাহলেসেজন্যআপনিযেবিষয়গুলোনিয়েআর্টিকেল লিখবেনসেইবিষয়গুলো সহজেখুঁজেবেরকরতেপারেএরকমএকটিভালোমানেরথিমকেনারচেষ্টাকরবেন।   

অথবাআপনিযদিনাচানতাহলেসেক্ষেত্রে কোনসমস্যানেইআপনারাচাইলেপ্রথমাবস্থায় ওয়ার্ডপ্রেস এরভেতরেঅনেকরয়েছেসেগুলোআপনারাব্যবহার করতেপারেনএবংপরেযদিআপনারামনেকরেনযেআপনাদের ওয়েবসাইটের জন্যএকটাথিমকেনা  দরকারতখনচাইলেআপনারাতিনকিনতেপারেনকিন্তুপ্রথমঅবস্থায় আপনারাচাইলেফ্রিথিমব্যবহার করতেপারবেন। Home based business opportunities. 

 

 

ওয়ার্ডপ্রেস এরভেতরেআপনারাহাজারহাজারথিমপেয়েযাবেনএবংএসইও ফ্রেন্ডলি ইউজার ফ্রেন্ডলি প্রচুরপরিমাণে রয়েছেসেগুলোআপনারাচাইলেব্যবহার করতেপারেন।  

ব্লগিংকরেকিন্তুআপনিপ্রচুরপরিমাণে অর্থউপার্জন করতেপারবেনএমনঅনেকব্লগাররয়েছেযারাপ্রতিমাসে 5 থেকে10 কোটিটাকাপর্যন্ত শুধুমাত্র গুগলএডসেন্সের মাধ্যমে ইনকামকরেথাকে যেমনmashable.  এরকমের আরো অনেকওয়েবসাইট রয়েছেযেগুলোগুগলএডসেন্সের মাধ্যমে প্রচুরপরিমাণে অর্থ  উপার্জন করে  থাকেপ্রতিমাসে আর এছাড়াও কিন্তু  বিভিন্ন স্পনসর্শিপ এবংএডবসিয়েইনকামকরেতারাতারপরেতারাবিভিন্ন প্রোডাক্ট বিক্রিকরেএফিলিয়েট মার্কেটিং করেএবংবিভিন্ন মাধ্যমে কিন্তুইনকামকরেথাকেব্যাকলিংক বিক্রিকরা, এছাড়া আরও বিভিন্ন মাধ্যমে ব্লগিংওয়েবসাইট থেকেইনকামকরাযায়  

তাহলেবুঝতেইপারছেনকিপরিমানে ইনকামকরতেপারবেনআপনারাএই  ব্লগিংব্যবসাকরে।অবশ্যএইকাজকরারক্ষেত্রে আপনাকেযেকোনবিষয়েএকটাপারদর্শী হতেহবেঅতএবযে  বিষয়  সম্পর্কে আপনিবেশীজানেনসেইবিষয়সম্পর্কে আপনিলিখতেপারেন   

আপনিযদি  ট্রাভেল নিয়েলিখতেপারেনতাহলেসেটাওনিতেপারেনঅর্থাৎআপনিযদিঘুরাঘুরি করতেভালোবাসেন তাহলেআপনারসেইঘোরাঘুরি করারঅভিজ্ঞতা আপনাদের ব্লগেলিখতেপারেন  অথবাআপনিযদিলেখাপড়া বেশিবিভিন্ন তথ্যজানেনতাহলেসেগুলোলিখতেপারেনকিংবাআপনিযদিব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্যজানেনসেগুলোলিখতেপারেন 

কিংবাআপনিযদি  ইন্সুরেন্স বীমালোনকিভাবেনিতেহয়লাইসেন্স কিভাবেকরতেহয়ট্রেডলাইসেন্স কিভাবেবানাতেহয়এইসমস্তবিষয়গুলোজানেনটেকনোলজি বিষয়কবিভিন্ন তথ্যজানেন, অথবাস্বাস্থ্য বিষয়কবিভিন্ন তথ্যজানেনকিংবাঅন্যকোনবিষয়েযদিআপনারানাথাকেনসেইবিষয়সম্পর্কে আপনারাআপনাদের ওয়েবসাইটে লেখালেখি করতেপারবেন 

আশাকরিযেআপনারাআপনাদের ওয়েবসাইটে কিনিয়েলেখালেখি করবেনসেইবিষয়টা ক্লিয়ার হয়েগিয়েছেন।  যখন আপনারলেখাগুলো প্রচুরপরিমাণে মানুষেরাপড়বেমানুষের আপনারপড়াযখনপছন্দকরতেশুরুকরবে, তখনথেকেকিন্তুআপনারইনকামশুরুহবে, অর্থাৎযখনআপনারওয়েবসাইটে ভিজিটরআসবেএবংআপনারওয়েবসাইটে কোনগুগলঅ্যাডসেন্স এরসাথেকানেক্ট করেনিবেন 

তখনআপনারওয়েবসাইট বিভিন্ন বিজ্ঞাপন দেখাবে অর্থাৎ যেসমস্তবিজ্ঞাপন কোম্পানিগুলো অর্থাৎবিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপন দিয়েথাকেসেইবিজ্ঞাপন গুলোআপনারওয়েবসাইট দেখাবেএবংকোনবিষয়টা যদিআপনাদের ওয়েবসাইটে আর্টিকেল পড়তেএসেসেইবিজ্ঞাপন এরভিতরক্লিককরেতাহলেআপনারএডসেন্স একাউন্টে ডলারজমাহতেথাকবে  

আপনাদের অ্যাডসেন্স  একাউন্টে যখন10 ডলারহয়েযাবেতখনগুগলথেকেআপনাদের একটাপিনভেরিফাই করারজন্যএকটাচিঠিপাঠাবেসেই  চিঠিরভিতরেএকটিকোডলেখাথাকবেসেইকোডটিআপনারএডসেন্স এরভেতরেবসিয়েদিলেআপনাদের এডসেন্স একাউন্ট ভেরিফাই হয়েযাবে 

আরএরপরকিন্তুআপনারকাজসম্পূর্ণভাবে শেষতারপরথেকেযখনআপনারএডসেন্স একাউন্টে 100 ডলারহয়েযাবেতখনথেকেকিন্তুআপনারসাথেসাথেআপনারব্যাংকে 21 তারিখথেকে22 তারিখের ভিতরেপ্রতিমাসে আপনারএকাউন্টে টাকাজমাহয়েযাবে  

আপনাদের একাউন্টে যখন100 ডলারহয়েযাবেতখনআপনারাআপনাদের ব্যাংকঅ্যাকাউন্ট এডসেন্স এরভেতরেলগইনকরেএডকরেনিবেনতাহলেআপনারকাজশেষতারপরথেকেএরচেঞ্জকোম্পানি থেকেসবকাজকর্ম করবেঅর্থাৎআপনারএকাউন্টে  যখন 100 ডলারহয়েযাবেতখনআপনিযেব্যাংকএকাউন্টে ইনফরমেশন গুলোদিসেনএডসেন্স একাউন্টের ভেতরেসেইএকাউন্টে আপনারযেটাকাহবেসেইটাকাটাআপনারাপেয়েযাবেন 

আপনাদের যদি1000 ডলারবা50 হাজারডলারহয়সেইটাকাটাআপনারাপ্রতিমাসে20 থেকে21 তারিখের ভিতরেপেয়েযাবেন  আশাকরিবুঝতেপেরেছেন কিভাবেআপনারাআপনাদের ব্যাংকএকাউন্টে নিতেপারবেন 

. Freelancer মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারেন  

আপনারাযদিকরেবেশিদক্ষহয়েথাকেনতাহলেসেইকাজকরেকিন্তুআপনারাফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস থেকেবেশভালোপরিমাণে  অর্থ প্রতিমাসেউপার্জন করতেপারবেন  

1.     Virtual Assistant

2.     Social media

3.     Design tech

4.     Pinterest

5.     Copywriting

6.     Customer Service, etc.

7.     Writer

8.     Digital marketer 

9.     Seo service

10.                        Video editing 

11.                        Photo editing 

12.                        Graphics degain

13.                        Logo degain

14.                        eBook Writer

15.                        Web Content Writer

16.                        Writing Translator

17.                        Proofreader

18.                        Ghost Writer

19.                        Resume & Cover Letter Writer

20.                        Product Description Writer

21.                        T-Shirt Designer

22.                        Vector Designer

23.                        Digital Artist

24.                        Web Font Designer

25.                        Social Media Video Creator

26.                        Keyword Research

27.                        Customer Service, etc.

 

এইরকমেরআরোবিভিন্ন সার্ভিস দিয়েকিন্তুআপনিফ্রিল্যান্সিং করেঘরেবসেউপার্জন করতেপারবেন।  

. Photography 

আপনারযদিছবিতোলারশখথাকেতাহলেএইশখটা  দিয়েও  কিন্তুআপনারাঅনলাইনথেকেউপার্জন করতেপারবেনআপনারাকিন্তুআপনাদের ছবিগুলো অনলাইনের বিভিন্ন ওয়েবসাইট রয়েছেযেখানেআপনারাএইছবিগুলো বিক্রিকরেবেশভালো  পরিমাণে একটাঅর্থউপার্জন করতেপারবেন 

আরতাইআপনাদের যদিছবিথাকেতাহলেএইছবিগুলো আপনারাভালোভাবে তুলেযদিআপনারাঅনলাইনের বিভিন্ন ওয়েবসাইটে সাবমিটকরেনতারাযদিএপ্রুভকরেতারপরেপ্রতিছবিরজন্যআপনারা5 হাজারথেকে10 ডলারবাতারওবেশিটাকাপেতেপারেনএটাসম্পূর্ণ নির্ভরকরবেআপনারছবিরকোয়ালিটির উপরআপনারছবিরকোয়ালিটি ভালোহবেততবেশিপরিমাণে আপনিটাকাপেতেথাকবে

আরআপনারছবিটাযতবাড়বেততটাকাপাবেনমনেকরেনআপনারএকটিছবি  10 ডলারকরেআপনাকেদিবেতারাবলল এক্ষেত্রে আপনারছবিটিযদি1000 বারবিক্রিকরাহয়তাহলেআপনি1000 বারইছবিটারজন্যটাকাপাবেন মনেকরেনযে, ১০০০*১০ = ১০০০ ডলার 

তাহলে বুঝতে পারতেনযেআপনারফটোগ্রাফি করে কি পরিমানে  অর্থ উপার্জন করতেপারবেনআরএই  ভাবেযতগুলোছবিআপনারাবিক্রিকরতেপারবেনতথ্যগুলো ছবিরজন্যকিন্তুআপনারাটাকাপেতেথাকবেন  

. Social media influencer 

আপনারা চাইলে সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সার হিসেবে কাজ করতে পারেনবর্তমান সময়ে কিন্তু অনেকেই এখন সোশ্যাল মিডিয়ার ইনফ্লুয়েঞ্জার হিসেবে কাজ করতেছি আপনারা চাইলে এই কাজটি করতে পারেন। আপনার সোশ্যাল  মিডিয়ার  একাউন্ট যদি প্রচুর পরিমাণে  ফলোয়ার থাকে তাহলে কিন্তু আপনারা অন্যের একাউন্টগুলো প্রমোট করে সেখান থেকে উপার্জন করতে পারবেন   

অর্থাৎ আপনি যদি অন্য কারো এখন প্রমোট করে দেন তাহলে তার কাছ থেকে আপনি 50 ডলার কিংবা 100 ডলার নিতে পারেনযখন আপনাদের প্রোফাইলে প্রচুর পরিমাণে  ফলোয়ার হয়ে যাবে তখন কিন্তু আপনারা নতুন একটি একাউন্টে 1000  ফলোয়ার করে দেওয়া কয়েক মিনিটের ব্যাপার হবে মাত্র  আপনারা কিন্তু চাইলে 1000 ফলোয়ার এর জন্য 30 থেকে 50 ডলার পর্যন্ত চার্জ করতে পারেন   

এছাড়াও আমরা বিভিন্ন কোম্পানির কাছ থেকে স্পনসর্শিপ পাবেন আর এই স্পনসর্শিপ গুলো কিন্তু আপনাকে খুঁজতে হবে না আপনার সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্টে যখন প্রচুর পরিমাণে  ফলোয়ার  হয়ে যাবে তখন কিন্তু ওই কোম্পানিগুলোই আপনাকে খুজে নেবে  আর আপনারা কিন্তু তাদের কাছ থেকে বেশ ভালো পরিমাণে অর্থ নিয়ে তারপরে  আপনারা  তাদের যে প্রোডাক্ট গুলো রয়েছে সেগুলো  প্রমোট করতে পারবেন  

 

. Start a food business from home 

আপনারা যদি খাবার ভালোভাবে বানাতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনারা খাবার বানিয়ে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন   আপনি যদি জন্মদিনের কেক বা বিভিন্ন ধরনের কেক বানাতে পারেন তাহলে সেগুলো বিক্রি করে কিন্তু অর্থোপার্জন করতে পারবেন   আপনারা বাসায় বসে কেক বানাবেন এবং কেউ যদি অর্ডার করে তারপরে  আপনারা ডেলিভারি দিয়ে দিবেন   

আর বর্তমান সময়ে কিন্তু এখন অনেকেই ফুড বিজনেস  করতেছেডেলিভারি করার জন্য কিন্তু আপনার চিন্তা করা লাগবে না ডেলিভারী সার্ভিস কোম্পানি গুলো দিয়ে থাকে তাদের সাথে যোগাযোগ করলে তারা কিন্তু আপনার বাসা থেকে আপনার খাবার গুলো নিয়ে কাস্টমারের কাছে ডেলিভারি দিয়ে দিবে নিচে কিছু ফুড ডেলিভারি অ্যাপস এর লিঙ্ক দিয়ে দিলাম



1.   Foodpanda

2.   Foodpeon

3.   Cookups

4.   Foodtong

 

উপরের অ্যাপসগুলো ছাড়াও আরো অনেক কিছু আছে যেগুলো খাবার ডেলিভারি করে থাকি। প্রথমে আপনাকে এই সমস্ত ফুড ডেলিভারি অ্যাপস গুলো তে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে তারপরে আপনার খাবারগুলো এই অ্যাপস এর ভিতর সাজিয়ে রাখতে হবে আর তারপরেই অ্যাপস গুলোর মাধ্যমে  গ্রাহকরা  আপনার খাবার অর্ডার করবেন   

রাইডার এসে তারপরে আপনার কাছ থেকে খাবার এসে কাস্টমারদের কাছে পৌঁছে দেবে মাস শেষ হয়ে গেলে আপনারা ফুড ডেলিভারি অ্যাপস গুলোর কাছ থেকে  অর্থ পেয়ে যাবেন  

আশা করি বুঝতে পেরেছেন কিভাবে আপনারা খাবার বানিয়ে   রোজগার করতে পারবেন   আপনারা যদি অন্য কোন  খাবার বানাতে পারেন তাহলে সেগুলো বিক্রি করেও কিন্তু আপনারা খুব সহজে ঘরে বসে খাবার বানিয়ে উপার্জন করতে পারবেন 

আমাদেরশেষ কথা–  

তাহলে আজকে আমাদের আর্টিকেলে পাঁচটি জনপ্রিয় ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে আলোচনা করলাম যে পাঁচটি ব্যবসায় মহিলারা ঘরে বসেই করতে পারবেন   আর এই রকমের ব্যবসা আইডিয়া পেতে আমাদের ওয়েবসাইটে প্রতিদিন ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে এখন থেকে প্রতিদিন এরকম ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করা হবে   তাই আপনি যদি সবার আগে আমাদের ওয়েবসাইটে তথ্যগুলো পেতে চান তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটটি আপনার ব্রাউজারে বুকমার্ক করে রাখতে পারেন   

তাতে করে আমাদের ওয়েবসাইটটি  আপনাদের মনে থাকবে এবং যেকোনো সময় আমাদের ওয়েবসাইটে দেখতে পারবেন আমাদের ওয়েবসাইটে নতুন কোন আর্টিকেল লেখা হয়েছে কিনা   

আমাদের ওয়েব সাইটে প্রতিদিনই নতুন আর্টিকেল প্রকাশ করা হয়ে থাকে আর এই সমস্ত ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে প্রতিদিন তথ্য পেতে হলে আমাদের প্রতিদিন আপনাদেরকে ভিজিট করতে হবে  

আর এর পরে কোন বিষয় সম্পর্কে আপনারা ব্যবসার আইডিয়া জানতে চান সেটা আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন আমরা  সেই বিষয় নিয়ে আপনাদের সাথে শেয়ার করার চেষ্টা করবো 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *