ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইট শুরু করলে যে যে সুবিধা পাবেন জানুন

লেখালেখি করার অভ্যাস থেকে কিন্তু অনেকেই ব্লগিং শুরু করে 

 

ব্লগিং করতে চাইলে প্রথমাবস্থায় ব্লগার দিয়ে শুরু করলে কি কি সুবিধা পাবেন

অনেকে গল্প লিখতে ভালোবাসেন অথবা অনেকে রয়েছেন যারা কবিতা লিখতে পারেন। আবার অনেককে রয়েছেন যারা টেকনোলজি ভালোবাসেন এবং টেকনোলজি সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য লিখতে পারেন এবং  অনেকে আছেন যারা আবার স্বাস্থ্য বিষয়ক বিভিন্ন তথ্য লিখতে পারেন  

অনেকেই রয়েছে যারা ঘুরতে ভালোবাসেন আপনারা চাইলে কিন্তু ট্রাভেল বিষয়ক ব্লগ বানাতে পারেন অর্থাৎ আপনারা ঘোরার অভিজ্ঞতা সেখানে যেতে কত টাকা লেগেছে এবং কি কি খেয়েছেন এবং সেখানে গিয়ে কি কি দেখতে পেয়েছেন সেখানে গেলে কোথায় থাকা লাগে এই সমস্ত বিষয় গুলো কিন্তু অনেকে ওয়েবসাইট বানিয়ে অর্থ রোজগার করতে আপনারা চাইলে কিন্তু এই বিষয়ে ওয়েবসাইট বানাতে পারেন। অর্থাৎ আপনারা যদি ট্রাভেল করতে ভালোবাসেন তাহলে কিন্তু আপনার ট্রাভেল বিষয়ক ব্লগ বানাতে পারেন।  

আর এই লেখালেখি থেকে কিন্তু শুরু হয়ে যায় ব্লগিং  শুরু করা অনেকে রয়েছে   যারা ব্লগিং শুরু করে কিন্তু  মাঝপথে এসে অনেকেই দেখা যায় যে থেমে যায় , আর এর একমাত্র কারণ হল সঠিক ভাবে সব কিছু বুঝতে না পারা।  

ব্লগিং করা অনেক সহজ এবং ব্লগিং করার মাধ্যমে কিন্তু খুব সহজে আপনারা আপনাদের বাসায় বসে বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে আর্টিকেল লিখে সেগুলো মানুষদের কাছে শেয়ার করে অর্থাৎ আপনি যে বিষয় সম্পর্কে ভাল জানেন সে বিষয়ে সম্পর্কে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে লেখালেখি করে আপনারা অর্থ রোজগার করতে পারবেন।

আর এই ব্লগিং পেশাটা কিন্তু বেশিরভাগ যারা কাজ করে তারা ছাত্র থাকে ,ছাত্র জীবনেই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় যে যারা ছাত্র তারা এই ব্লগিং পেশার সাথে জড়িত  

আমাদের ভেতরে অনেকেই রয়েছেন যারা লেখালেখি শুরু করতে চান ব্লগিং শুরু করতে চান কিন্তু কোথায় লেখালেখি  করবেন এই বিষয়টি সম্পর্কে জানেন না  

আপনারা  ব্লগার এর মাধ্যমে মাধ্যমে প্রথম অবস্থায়  লেখালেখি করে শুরু করতে পারেন  আবার আমাদের ভেতরে অনেক মানুষ আছে যারা চাই যে , আমাদের লেখাগুলোকে সারা পৃথিবীর মানুষের  পড়ুক  

আপনারা চাইলে আমাদের ওয়েবসাইটের লেখালেখি করতে পারেনআপনারা যদি আমাদের ওয়েবসাইটে লিখতে চান তাহলে আমাদেরকে Contact পেজের মাধ্যমে আমাদের সাথে Contact  করতে পারেন  

ব্লগিং করতে চাইলে  ব্লগার  দিয়ে শুরু করলে প্রথম অবস্থায় কি কি সুবিধা পাবেন জেনে নিন –  

ইউটিউব (YouTube) যেমন একটা গুগুলের একটি প্রোডাক্ট ঠিক  সেরকম ভাবেই  ব্লগার (Blogger) ফলো গুগলের  অন্য একটি  প্রোডাক্ট।  আমরা সকলেই  জানি যে গুগলের  প্রায়  বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট  ফ্রিতে ব্যবহার করা যায়। আপনারা যদি এখানে নতুন হয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু নতুন অবস্থায় আপনারা এই ব্লগার এর বিভিন্ন সুযোগসুবিধা পাবেন 

 

{tocify} $title={Table of Contents}

ব্লগিং  করার প্রথম অবস্থায় আপনার যদি  ব্লগার দিয়ে  ওয়েবসাইট বানান তাহলে কিন্তু সুযোগ সুবিধা পাবেন। আর আজকে এই সুবিধাগুলো  step-by-step আপনাদের সাথে শেয়ার করব। আর আপনি যদি এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জানার জন্য আগ্রহী হয়ে থাকেন তাহলে আজকের আর্টিকেলটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়বেন তাহলে আশা করি এই বিষয়গুলো সম্পর্কে সম্পূর্ণ জানতে পারবেন। 

ফ্রীতে ডোমেইন পেয়ে যাবেন 

ব্লগিং শুরু করতে চাইলে কিন্তু আপনাদেরকে একটি ওয়েবসাইটের দরকার হয় আর ওয়েবসাইট বানাতে হলে কিন্তু অবশ্যই আপনাদেরকে একটি ডোমেইন কিনতে হবেডোমেইন কেনার জন্য কিন্তু ডোমেইন কোম্পানিকে কিছু পরিমাণে অর্থ প্রদান করতে হয় আর আপনাদের কাছে যদি অর্থ না থাকে তাহলে আপনারা কিন্তু ব্লগার দিয়ে যদি ওয়েবসাইট বানান সে ক্ষেত্রে আপনারা ফ্রি  ডোমেইন  পেয়ে যাবেন 

আগেও বলেছি যে ব্লগার হলো গুগলের একটি প্রোডাক্ট আর এটা সম্পূর্ণ ফ্রি একদম বিনামূল্যে আপনার ব্যবহার করতে পারবেন কিন্তু এখানে আপনাদেরকে একটা কথা বলে রাখি যে এখানে কিন্তু আপনারা , .com  .net .org  .info এই সমস্ত ডোমেইন কখনোই  ফ্রী  পাবেন না 

কিন্তু আপনারা ব্লগার  ডোমেইন এর  সাবডোমেইন ফ্রিতে পাবেন উদাহরণ হিসেবে বলা যায় মনে করুন , আপনি আপনার ওয়েবসাইটের জন্য একটি ডোমেইন নাম সিলেক্ট  করবেন আর তারপরে ডোমেইন নেমের শেষে এরকম এর একটি লেখা থাকবে, blogspot.com আর এটাই হল মূলত সাবডোমেইন  

আর আপনারা যদি ব্লগার  দিয়ে  ওয়েবসাইট বানান তাহলে এই রকমের একটা ডোমেইন ফ্রী পাবেন 

আর এটা যেহেতু  গুগলের একটি প্রোডাক্ট তাই আপনাদের অ্যাডসেন্স পাওয়ার জন্য কোন সমস্যা হবে নাআর এই রকমের সাবডোমেইন দিয়ে কিন্তু বর্তমানে অনেকেই গুগল অ্যাডসেন্স পাচ্ছেতাই আপনাদের ওয়েবসাইটেও আশাকরি আপনারা এরকম ডোমেইন নিয়ে যদি কাজ করেন তাহলেAdsense Approved পাবেন। 

আপনারা যদি ব্লগার দিয়ে না বানিয়ে ওয়াডপ্রেস দিয়ে একটি ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে সে ক্ষেত্রে কিন্তু আপনাদের ডোমেইন হোস্টিং কিনতে হবে। 

.com .info. Xyz .net.org এরকম এর যেকোনো একটি ডোমেইন আপনাকে কিনে তারপরে আপনার ওয়েবসাইটটি গুগলে পাবলিস্ট করতে হবে অর্থাৎ গুগলে লঞ্চ করতে হবে আপনারা যদি ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে কিন্তু অবশ্যই ডোমেইন হোস্টিং কিনতে হবে ডোমেইনহোষ্টিং ছাড়া আপনারা ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন না 

আপনারা যদি চান যে আপনি ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইট বানাবেন কিন্তু ডোমেইন কিনবেন সাব ডোমেইন ব্যবহার করবেন না তাহলে সেটাও করতে পারবেন , আর এক্ষেত্রে আপনাদের ডোমেইন নাম কিনার জন্য এক বছরের জন্য ডোমিন কোম্পানিকে টাকা দিতে হবে এবং প্রত্যেক বছর আপনাকে আপনার ডোমেইন নেমটি রিনিউ করে নিতে হবে। এখন অনেকের মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে ডোমেইন নেম একবারের জন্য কিনলেই তো হয়আবার রিনিউ করতে হবে কেন? 

ডোমেইন নেম রিনিউ হলো আপনি প্রথম যখন ডোমেইন কিনবেন তখন এক বছরের জন্য ডোমিন কোম্পানিকে টাকা দিবেন

আর এক বছর আপনার  ডোমেইনটি গুগলে সার্চ করলে পাওয়া যাবে আর এক বছর পর আপনার ডোমেইনটি মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে তখন আপনার ওয়েবসাইট লিঙ্ক ডাইরেক গুগোল পেস্ট করলেও আসবেনা আপনার সাইটটি ভিজিট করা যাবে না। 

যখন আপনারা আপনাদের Domain কোম্পানিকে এক বছর পরে রিনিউ করার জন্য তাদের কাছে টাকা দিবেন তারপরে তারা আপনার ডোমেইনটি রিনিউ করে দেব এবং আপনারা আপনাদের ওয়েবসাইট থেকে আবার গুগলে দেখতে পারবেন যখন  একটা ওয়েবসাইট Domain এর  মেয়াদ শেষ হয়ে যায় তখন ওই ওয়েবসাইটে ভিজিট করা যায় না।  

একদম বিনামূল্যে হোস্টিং ব্যবহার করতে পারবেন  

হোস্টিং কি ? হোস্টিং সম্পর্কে আমাদের ওয়েবসাইটে একটি আর্টিকেল রয়েছে  মানে ডোমেইন হোস্টিং কি এবং কেন ব্যবহার করবেন কিভাবে ব্যবহার করতে হয় কোথা থেকে ডোমেইন কিনবেন এই বিষয়গুলো সম্পর্কে একটা আর্টিকেল আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা রয়েছে  

আপনারা চাইলে সেই আর্টিকেলটি একবার দেখে আসতে পারেন তাহলে আশা করি যে ডোমেইনহোষ্টিং কি এই বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনারা বিস্তারিত  সকল তথ্য সম্পর্কে আপনাদের একটা ধারণা হয়ে যাবে   

Read More – ডোমেইন হোস্টিং কি,কেন কীভাবে ব্যবহার করবেন?

 

আপনারা যদি ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনাদের কোন হোস্টিং কেনার জন্য টাকা লাগবে না কিন্তু আপনারা যদি ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে একটা ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে সেক্ষেত্রে আপনাদের কে হোস্টিং কেনার জন্য প্রতি মাসে বা আপনারা যদি এক বছরের জন্য কিনতে চান তাহলে এক বছরে জন্য হোস্টিং কোম্পানিকে টাকা দিতে হবে  

ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট বানালে হোস্টিং আপনারা যত দিনের জন্য টাকা দিবেন ততদিনই আপনার ব্যবহার করতে পারবেন তারপর আবার আপনাদেরকে রিনিউ করতে হবে যদি রিনিউ  না করেন তাহলে আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিট করা যাবে না 

আর  ভিজিট করা না করা গেলে আপনাদের ওয়েবসাইটে তাহলে কিন্তু আপনারা অনেক ভিজিটর হারাবেন   কিন্তু আপনারা যদি ব্লগার দিয়ে বানানো তাহলে আপনারা একদম বিনামূল্যে হোস্টিং ব্যবহার করতে পারবেন আপনাদের কোন হোস্টিং কিনতে হবে না  

আপনারা সকলেই জানেন যে গুগলের একটি জিমেইল 15 জিবি পর্যন্ত ফ্রি থাকে আর সেটা কিন্তু আপনারা গুগোল ড্রাইভ এর মাধ্যমে ব্যবহার করে থাকি

আর আপনারা যদি ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইট বানান তাহলে কিন্তু এই সুবিধা পাবেন না থাক আপনাদের হোস্টিং কেনার জন্য কোন টাকা খরচা করা লাগবে না আপনারা একদম বিনামূল্যে  হোস্টিং  ব্যবহার করতে পারবেন   

একদম ফ্রিতে থিম ব্যবহার করতে পারবেন  

আপনারা আপনাদের ওয়েবসাইট থেকে কাস্টমাইজেশন করার জন্য কিন্তু একটা থিম এর দরকার হবে থিমটি অবশ্যই  এসইও ফ্রেন্ডলি এবং মোবাইল ফ্রেন্ডলি ইউজার ফ্রেন্ডলি হতে হবে  যাতে খুব তাড়াতাড়ি লোড নাই এরকমের একটি থিম আপনাদের ওয়েবসাইটে জন্য সিলেক্ট করে নিতে হবে 

আপনারা যদি  ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইট বানান তাহলে কিন্তু অনেক ফ্রি থিম পেয়ে যাবেন এরকমের অনেক ফ্রি থিম গুগলে সার্চ করলে আপনারা পেয়ে যাবেন 

আর এই সমস্ত থিম গুলো দিয়ে কিন্তু আপনারা অনেক সুন্দর ভাবে আপনাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে কাস্টমাইজেশন করতে পারবেন এবং একটা প্রফেশনাল মানের ওয়েব সাইটের মত বানাতে পারবেন  

আপনারা যদি ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে সেক্ষেত্রে কিন্তু দেখা যায় আপনারা  থিম ফ্রিতে পাবেন নাওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে যদিও সে বানান তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনাদেরকে থিম গুলোকে কিনে নিতে হবে কিন্তু আপনারা যদি  ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইট বানান তাহলে কিন্তু আপনারা একদম বিনামূল্যে থিম গুলো ব্যবহার করতে পারবেন   

ব্লগিং করলে কোন কোন পদ্ধতিতে অর্থ রোজগার করতে পারবেন 

ব্লগিং শুরু করলে কিন্তু আপনার প্রতি মাসে  10 থেকে 20 হাজার টাকা খুব সহজে রোজগার করতে পারবেন ব্লগিং করে কিন্তু বেশ ভালো পরিমাণে এটা অর্থ প্রত্যেক মাসে উপার্জন করা সম্ভব

আপনারা যদি ভালোভাবে কাজ করেন অর্থাৎ নিয়মিতভাবে কাজ করেন এবং এসইও এর কাজ গুলো ভালোভাবে করতে পারেন ভিজিটর অনেক বেশি আনতে পারেন আপনাদের  ওয়েবসাইটে তাহলে কিন্তু আপনাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে  প্রতিমাসে 1 থেকে 2 লাখ টাকা পর্যন্ত উপার্জন করতে পারবেন খুব সহজে 

বাংলাদেশের ভেতরে এমন অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যারা প্রত্যেক মাসে এক কোটি টাকার উপর ইনকাম করে থাকেন তাহলে আপনি কেন পারবেন না   

আপনারা যদি চেষ্টা করেন তাহলে অবশ্যই পারবেন আপনারা কি বিষয় নিয়ে কাজ করেন তার উপর ডিপেন্ড করে এবং আপনারা যদি ইংলিশ ভাষা এবং বাহিরের দেশ থেকে ভিজিটর আনতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনাদের উপার্জন করার  পরিমাণটা বেশি হবে  

কারণ বিদেশের দেশ থেকে যদি আপনাদের ওয়েবসাইটে ক্লিক করে তাহলে আপনাদের এডসেন্স একাউন্টে  সিপিসি বেশি দেবে আপনারা আপনাদের ওয়েবসাইট  দিয়ে কিন্তু এডসেন্স নয় এছাড়াও আরও অনেক উপায় রোজগার করতে পারবেন   যেমন মনে করেন যে –  

·              এফিলিয়েট মার্কেটিং করে

·              স্পন্সরশীপের মাধ্যমে 

·              বিভিন্ন প্রোডাক্ট বিক্রি করে 

·              কোর্স বিক্রি করে 

·              ব্যাকলিংক বিক্রি করতে পারবেন  

এছাড়া ও আরো অনেক উপায় আপনারা আপনাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে  অর্থ উপার্জন করতে পারবেন আপনাদের ওয়েবসাইটে যখন প্রচুর পরিমাণে ভিজিটর আসবে এবং অনেক জনপ্রিয় হয়ে যাবে যখন আপনাদের রয়েছে তখন কিন্তু  আপনাদের অর্থ প্রচুর পরিমাণে আসতে থাকবে  

বিভিন্ন লোকাল কোম্পানি আপনাদের কাছে বিজ্ঞাপন দিতে আসবে তাদের কাজটা কিন্তু আপনার বেশ ভালো পরিমাণে একটা অর্থ নিয়ে তারপরে তাদের কোম্পানির বিজ্ঞাপন আপনাদের ওয়েবসাইটে দিতে পারবেন  

আমাদের শেষ কথা  

তাহলে আজকে আমরা জানতে পারলাম যেব্লগিং শুরু করতে চাইলে প্রথম অবস্থায় কেন বলে শুরু করবেন এবং ব্লগার এর মাধ্যমে ওয়েবসাইট  শুরু করলে কি কি সুযোগ সুবিধা পাবেন এই সমস্ত বিষয়গুলি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করলাম   এরপরেও যদি আপনাদের  মনে কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে সেটা আমাদেরকে কমেন্ট করে  নির্দ্বিধায় জানাতে পারেন 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *