বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় ৫টি ব্যবসার আইডিয়া

আজকে আমরা আমাদের এই আর্টিকেলের ভিতরে  আপনাদের সাথে,

৫টি ছোট ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে আলোচনা করব। 

বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় ৫টি ব্যবসার আইডিয়া

 

আপনারা যদি ব্যবসা করার জন্য আগ্রহী হয়ে থাকেন অথবা ব্যবসা শুরু করবেন চিন্তা ভাবনা করতেছেন কিন্তু কিভাবে শুরু করবেন সেটা ভেবে পাচ্ছেন না তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্যই লেখা। 

 

{tocify} $title={Table of Contents}

 

এই আর্টিকেলের ভিতরে আমি ৫টি ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে আলোচনা করবো,আর এই ৫টি ব্যবসার আইডিয়া ভেতরে আপনি যেকোন একটা ব্যবসা পছন্দ করে সেই ব্যবসাটি শুরু করে দিতে পারেন। তাহলে আর কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক – 

সবথেকে লাভজনক ছোট ব্যবসার তালিকা

আপনারা যদি নিজেরাই নিজেদের  বস হতে চান , তাহলে সে জন্য কিন্তু অবশ্যই আপনাকে ব্যবসা শুরু করতে হবে কিন্তু ব্যবসা শুরু করলে হবে না রেখে শুরু  করার আগে আপনাকে সঠিক ব্যবসাটি নির্বাচন করে নিতে হবে অর্থাৎ আপনি কি ব্যবসা করতে চান সেই  ব্যবসাটিকে আগে নির্ধারণ করে নিতে হবে।

 

মনে করুন আপনি এমন একটি ব্যবসা পছন্দ করলেন যে দেশে সম্পর্কে আপনার কোন ধারনাই নেই বা আপনার কোন আইডিয়া নেই সেই ব্যবসা সম্পর্কে তাহলে কিন্তু আপনি সেই ব্যবসা কখনো সফল হতে পারবেন না 

আপনাকে এমন একটি ব্যবসা সিলেক্ট করতে হবে যে ব্যবসা সম্পর্কে আপনার আগ্রহ রয়েছে এবং সে ব্যবসা সম্পর্কে আপনি আগে থেকে জানেন বা সেই ব্যক্তি সম্পর্কে কিছুটা আপনার ধারণা রয়েছে এমন একটি ব্যবসা আপনাকে পছন্দ করতে হবে। 

আপনি যদি হুট করে যে কোন ব্যবসা শুরু করে দেন তাহলে কিন্তু সে ক্ষেত্রে আপনারা কখনো সফলতা পাবেন না কখনোই সফলতার মুখ দেখতে পারবেন না এই বিষয়টা অবশ্যই আপনাদেরকে মনে রাখতে হবে  

আজকের এই আর্টিকেলে আপনারা ছোটবড় ৫টি  ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। 

.সুপার শপ ব্যবসা 

সুপারশপ হলো এমন একটি দোকান যেখানে এক ছাদের নিচে মানুষের দৈনন্দিন জীবনের সমস্ত জিনিসপত্র পাওয়া যায়। চালডালতেললবণ শাক সবজি মাছ মাংস জামাকাপড়  থেকে শুরু করে যে সমস্ত জিনিস গুলো মানুষের দৈনন্দিন জীবনের লাগে সে সমস্ত জিনিস গুলো কিন্তু সুপারশপগুলোতে পাওয়া যায়। বর্তমান সময় বেশিরভাগ মানুষই এখন সুপার শপ থেকে ক্রয়  করতে পছন্দ করে। 

কারণ তারা এক ছাদের নিচে সব কিছু পেয়ে যায় আর এর সাথে তাদের সময় বেঁচে যায়।  বর্তমান শোনায় কিন্তু মানুষেরা অনেক বেশি ব্যস্ত থাকে আর যার কারণে কিন্তু এই সকল সুপারশপগুলোতে মানুষ গিয়ে এক জায়গায় সব পেয়ে যায় কিন্তু তারা এই সমস্ত সুপারশপগুলো থেকে ক্রয় করার জন্য পছন্দ করে থাকেন।  

আর এটা হচ্ছে 2020 সাল থেকে 2030 সালের ভিতর সেরা ব্যবসায়িক ধারণাগুলির তালিকা আপনারা ইচ্ছে করলে কিন্তু খুব সহজেই ব্যবসাটি শুরু করে দিতে পারবেন এবং এই ব্যবসায় থেকে কিন্তু আপনারা প্রচুর পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন 

বর্তমান সময়ে এই ব্যবসাটি কিন্তু অনেক জনপ্রিয় একটি ব্যবসার ভেতরে রয়েছে তাই আপনারা চাইলে এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন তবে এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য আপনাকে অবশ্যই প্রচুর পরিমাণে মূলধনের দরকার পড়বে 

.আমদানি/রপ্তানি ব্যবসা

এই ব্যবসাটি কিন্তু সর্বকালের সেরা ব্যবসার গুলোর ভিতর একটি বলা যায়। আপনারা  কিন্তু চাইলে খুব সহজে আমদানি রপ্তানি এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। ইম্পর্ট আর এক্সপোর্ট হলো এক ধরনের আন্তর্জাতিক ব্যবসা মনে করুন এক দেশ থেকে আরেক দেশে পণ্য আদান প্রদানের মাধ্যমে যে ক্রয় বিক্রয় করা হয়ে থাকে আর  তার সাথে বাজারজাত করানো হলো সাধারণত ভাবে এক্সপোর্ট ইমপোর্ট ব্যবসা।

Read More – লাভজনক স্টক মালের ব্যবসার আইডিয়া 

 

Read More – অন পেজ এসইও কি,অনপেজ এসইও কিভাবে করবেন?

 

আর বর্তমান সময়ে তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়নের কারণে কিন্তু যে কেউ ইচ্ছা করলেই ব্যবসা শুরু করতে পারে। আর আপনারা যদি এই ব্যবসা করার জন্য আগ্রহী হয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন এই ব্যবসা থেকে কিন্তু বেশ ভালো পরিমাণে মুনাফা অর্জন করতে পারবেন আপনারা আর ভবিষ্যতেও চাহিদা বেড়ে যাবে বর্তমানে তো চাহিদা রয়েছে কিন্তু ভবিষ্যতেও এর চাহিদা আরো দ্বিগুন পরিমান বেড়ে যাবে 

.টি শার্ট ব্যবসা

আপনারা চাইলে কিন্তু টিশার্ট ব্যবসা শুরু করতে পারেন আর টিশার্ট ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাদের কিন্তু বেশি মূলধন এর প্রয়োজন হবে না। পাইকারি দামে আপনারা  টি শার্ট কিনে এনে সেগুলো কি আপনারা  খুচরা বিক্রেতা যারা রয়েছে তাদের কাছে বিক্রি করতে পারেন অথবা আপনারা চাইলে পাইকারি মূল্যে অনেকগুলো টি শার্ট কিনে এনে সেগুলো আপনারা দোকান দিয়ে বিক্রি করতে পারেন।  

আর এছাড়াও আপনারা চাইলে টিশার্ট বানিয়ে তারপরে সে গুলোকে প্রিন্ট করে বিক্রি করতে পারেন  টি শার্ট গুলো কিন্তু আপনারা গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি গুলো থেকে স্বল্প মূল্যে কিনে নিয়ে সেগুলো বেশ ভালো পরিমাণে লাভ করে বিক্রি করতে পারবেন   

আর আপনি যদি টি শার্ট বিক্রি করে ব্যবসা করতে চান তাহলে কিন্তু এই ব্যবসা থেকে আপনার বেশ ভালো পরিমাণে মনে পাওয়া যান করতে পারবেন আপনারা যদি শুরু করতে চান এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন  বর্তমান সময়ে ব্যবসার অনেক চাহিদা রয়েছে , আপনারা চাইলে কাপড় কিনে এনে সেই কাপড়ে নিজেদের মতো করে ডিজাইন করে সেগুলো বিক্রি করতে পারেন   

টিশার্টগুলো মানুষ কিনে থাকে ডিজাইন ভালো হলে তাই আপনারা যত ভালো পরিমাণে অর্থাৎ যত ভালো ডিজাইন আপনারা আপনাদের কাস্টমারদেরকে দিতে পারবেন তত কিন্তু আপনাদের টিশার্ট গুলো বিক্রি বেড়ে যাবে 

আর তাই অবশ্যই আপনাদেরকে টিশার্টগুলো ডিজাইনের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে যাতে করে টিশার্টের ডিজাইন গুলো ভাল মানের হয় যাতে করে দেখলেই কিন্তু ইচ্ছা করে এরকম এর ডিজাইন আপনাদের বানাতে হবে।  

. খাবার ডেলিভারি করার ব্যবসা 

বর্তমানে সবথেকে জনপ্রিয় দেশের ভেতরে এই ব্যবসাটি রয়েছে গ্রামের মানুষের থেকে কিনতে শহরের মানুষ বেশি পরিমাণে ব্যস্ত থাকে বেশিরভাগ সময় দেখা যায় যারা চাকরি করে তারা রান্নাবান্না করার সময় পায় না আর যারা জানে তারা চায় যাতে করে তাদের খাবার কেউ রান্না করে দিয়ে যায়

আবার ছুটির দিনে দেখা যায় যে সারা সপ্তাহে কাজ করার পর ছুটির দিনে রান্না করতে ভালো লাগেনা তখন অনেকে ভাবে কেউ যদি আমার খাবারটা রান্না করে দিয়ে আমার বাসায় যেত তাহলে ব্যাপারটা কেমন হতো আপনারা হয়তো এতক্ষণে বুঝে গেছেন আমি কিসের কথা বলতেছি , ফুডপান্ডা, ফুড, পাঠাও ফুড এই সমস্ত ফুড ডেলিভারি সার্ভিস এর কথাই হয়তো বা আপনার ভাবতেছেন দেয় না    

আপনারা যদি আপনাদের ঘরে রান্না করা খাবার বিক্রি করে সেগুলো দিয়ে  ব্যবসা করতে  চান তাহলে কিন্তু এই সকল ফুড ডেলিভারি সার্ভিস গুলো আপনাদের সাহায্য সহযোগিতা করবে। আর তাই আপনাদের শহরে যদি ফুড পান্ডাপাঠাও ফুডউবার ফুড  থেকে  থাকে তাহলে কিন্তু আপনারা অবশ্যই  এই ব্যবসাটি করার জন্য মনস্থির করতে পারেন  

. ফাস্ট ফুডের দোকানের ব্যবসা

যুগের সাথে তাল মিলিয়ে কিন্তু মানুষ এখন খাবার খেতে অনেক পছন্দ করেআর বেশিরভাগ মানুষই কিন্তু এখন ফাস্টফুডের খাবারগুলো খেতে বেশি পছন্দ করে। ফাস্টফুড খাবার ঘরের ভেতরে রয়েছে , বার্গার, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, চিকেন,পিৎজা এই সমস্ত যে খাবার গুলো রয়েছে সেগুলোকেই কিন্তু সাধারণত ভাবে  ফাস্টফুড এর  খাবার হিসেবে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। আর এই ব্যবসা করার জন্য আপনাদের কিন্তু বেশি  মূলধনের প্রয়োজন হবে না আপনারা কিন্তু স্বল্প পরিমাণে মূলধন  দিয়েও এই ব্যবসা শুরু করতে পারবেন   

অথবা আপনারা চাইলে বড়োসড়ো আকারেও দোকান দিতে পারেন কিন্তু আমি আপনাদেরকে পরামর্শ দিব যে প্রথম অবস্থায় বড় আকারে ছোট আকারে শুরু করার জন্য তারপরে যখন আপনাদের ব্যবসা বেড়ে যাবে যখন অনেক কাস্টমার আপনাদের দোকানে আসা শুরু করবে আপনাদের দোকানে যখন বেড়ে যাবে। 

তখন আপনারা চাইলে আপনাদের দোকানের পরিধি বাড়াতে পারেন বেকারত্ব দূর করার জন্য আপনারা যদি এক ধাপ এগিয়ে থাকতেন তাহলে কিন্তু আপনারা চাইলে এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন   

আমাদের শেষ কথা – 

তাহলে আজকে আমরা আমাদের এই আর্টিকেলের পাঁচটি  জনপ্রিয় ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে জানতে পারলামআপনারা যদি এই রকমের ব্যবসা এটি সম্পর্কে আরও তথ্য জানতে চান তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটে প্রতিদিন ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট এর ভিতরে বিভিন্ন তথ্য ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে দেওয়া হয়ে থাকে  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *