পুলিশের গাড়ি আটকানোর চেষ্টা, ইশরাকের ভিডিও ভাইরাল

বিএনপি নেতা ও ঢাকা দক্ষিণ সিটির সাবেক মেয়রপ্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেনের গাড়িতে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলার বাদী ইমতিয়াজ জনিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজধানীর স্বামীবাগের বাসা থেকে তাকে তুলে নেওয়া হয় বলে জানিয়েছেন জনির স্ত্রী শাহনাজ মুক্তা।

এদিকে বাদী তুলে নেওয়ার সময় পুলিমের গাড়ি আটকানোর চেষ্ঠা করেন এনপি নেতা ইশরাকসহ তার কয়েকজন সমর্থক। ওই ফেসবুক পেইজ থেকে একটি লাইভ করা হয়েছে। সেই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুরে বেড়াচ্ছে। সেই লাইভে দেখা যাচ্ছে- একটি পুলিশের গাড়িকে আটকের চেষ্টা করছেন ইশরাকসহ কয়েকজন যুবক। তবে এতে তারা ব্যর্থ হন। ওই সময় পুলিশের গাড়িটি না থেমে গলির রাস্তা ধরে চলে যায়।

জনির স্ত্রী শাহনাজ মুক্তা জানান, সোমবার রাত আনুমানিক ৮টার দিকে শামসুল আলম নামের ওয়ারী থানার এক পুলিশ কর্মকর্তা তার বাসায় আসেন। এসময় মামলা প্রসঙ্গে কথা বলতে হবে বলে সাথে যেতে বলেন তিনি। তবে জনি তাতে রাজি না হলে ৩৯নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি গোলাম মোহাম্মদ বুলবুলের বাসার নিচে গিয়ে কথা বলবে বলে বাসা থেকে বের হন। পরে সেখানে গেলে আরও পুলিশ সদস্যরা এসে জোর করে তাকে গাড়িতে তোলে। এসময় সেখানে থাকা লোকজন তাকে কেন নেওয়া হচ্ছে জানতে চেয়ে পুলিশ সদস্যদের সাথে কথা বলতে চাইলে গাড়ি টেনে চলে যায়। জনিকে তুলে নেওয়ার বিষয়ে জনির স্ত্রী আরও জানান, গত ৪ ডিসেম্বর বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেনের ওপর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের হামলার ঘটনায় আদালতে মামলা করা হয়। সে ঘটনায় আহতও হয়েছিরেন মামলার বাদী জনি।

এ ব্যাপারে ওয়ারী থানার ওসি তদন্তের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি ঢাকা বাইরে একটা ট্রেনিংয়ে আছি। অন্য কারও কাছ থেকে জেনে নেন। উল্লেখ্য, এর আগে গত বছরের ৪ ডিসেম্বর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ইশরাকের গাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে। ঢাকায় বিএনপির মহাসমাবেশের সমর্থনে লিফলেট বিতরণকালে রড ও লাঠিসোটা নিয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা এই হামলা চালায় বলে অভিযোগ methandienone gains করেন বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *